received 281424711654917

মোঃ হোসেন আলী -মিরপুর ঢাকা প্রতিনিধি

আজ চিকিৎসকদের প্রতি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলছেন, ‘আপনারা আমায় সেবা দিন, আমি আপনাদের সব কিছু দেব।’

আজ মঙ্গলবার (৫ মার্চ) রাজধানীর শাহবাগে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব কনভেনশন হলে সোসাইটি অব নিউরোলজিস্ট আয়োজিত ১০ আন্তর্জাতিক কনফারেন্সে এ কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, ‘রোগীর সুরক্ষার সঙ্গে সঙ্গে আমাকে ডাক্তারের সুরক্ষাও দেখতে হবে। আপনাদের যত সমস্যা আছে আমরা দেখব।

তবে আমাদের একটা অনুরোধ আপনাকে রাখতে হবে, ঢাকার বাইরে যেতে হবে। আজ সংসদ থেকে শুরু করে যেখানেই যাই একটাই কথা, মাননীয় মন্ত্রী, আমার এলাকায় উপজেলায় কোনো ডাক্তার থাকে না। আমি মনে করি, এটি ঠিক না।
তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে খুব শিগগিরই আমরা একটা নীতিমালা তৈরি করব।

যারা ঢাকার বাইরে কাজ করেন তাদের পদন্নোতি, বিদেশ যাওয়ার সুযোগসহ অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হবে।’
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা আমরা নিশ্চিত করতে পারলে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাত অনেক দূর এগিয়ে যাবে। এটি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল, প্রধানমন্ত্রীরও স্বপ্ন। আমাদের সবার স্বপ্ন।

চিকিৎসাব্যবস্থা সাধারণ মানুষের কাছে নিয়ে যাব।
মন্ত্রী হওয়ার পর দৈনন্দিন রুটিন বদলে গেছে জানিয়ে ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, ‘আমি অভ্যাসগত তিন বেলা ভাত খাই। সকাল, দুপুর ও রাত। আগে একটা নিয়ম ছিল, বিকেল ৪টা পর্যন্ত রোগী দেখার পর বাসায় এসে ভাত খেতাম। এরপর কিছুক্ষণ ঘুমিয়ে আমি ও আমার স্ত্রী জি বাংলা দেখি।

হঠাৎ একটা টেলিফোন আসল। আর আমার সব নিয়ম-কানুন বদলে দিল।’
তিনি বলেন, ‘চিকিৎসক হিসেবে আমার জীবন শুরু হয় বানিয়াচং থানায়। সেই ১৯৭২-৭৩ সালে। তখন তেমন রাস্তাঘাট ছিল না। বিদ্যুৎ ছিল না। রাত হলে হারিকেন ব্যবহার করতাম। যাতায়াত করতাম সাইকেল ও নৌকায়। তবে আমি খুব এনজয় করতাম।’

কনফারেন্সে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. রোকেয়া সুলতানা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্সেস ও হাসপাতালের যুগ্ম পরিচালক ও নিউরোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. বদরুল আলম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *