মোঃ আল আমিন, সিংড়া নাটোরঃ
বঙ্গবন্ধু এবং বঙ্গবন্ধু কন্যা পুরো বাংলাদেশ দেশকে জনগণের চাওয়ার চাইতেও বেশি দিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেছেন, আমরা জনগণ চাইতে ভুল করি, কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্য শেখ হাসিনা আমাদেরকে দিতে কোনো সময় ভুল করেন না।

এর প্রমাণ দিয়ে নাটোর থেকে নির্বাচিত এই সংসদ সদস্য বলেন, আমাদের শেরকোল বাসীর দীর্ঘদিনের দাবি ছিলো এই ইউনিয়নে একটি কলেজ করার। ১৯৯৬-২০০১ সাল পর্যন্ত আমাদের সাবেক চেয়ারম্যান শামছু চাচা চেষ্টা করেছেন পারেন নি। অন্যকেউ আর চেষ্টাই করেননি। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নির্বাচনে শেরকোলের ইতিহাসে রেকর্ড সংখ্যক ভোট দিয়ে যখন আপনারা আমাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বিজয়ী করে মহান জাতীয় সংসদে পাঠিয়েছেন। এরপর আমি ২০০৯ সালে জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমার ইউনিয়নের জন্য কলেজ প্রতিষ্ঠার দাবি করি। তিনি তখন ইউনিয়ন পর্যায়ে একটি অনার্স ও টেকনিক্যাল কলেজ করার বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে অনুমতি দেন। এরপর আমরা এই বঙ্গবন্ধু কমার্স অ্যান্ড টেকনিক্যাল কলেজকে আংশিক এমপিওভুক্তির আবেদন করলাম, যেন এই কলেজের ৭০-৮০ শতাংশ শিক্ষক সরকার থেকে বেতন পান। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের এই কলেজকে সম্পূর্ণ সরকারি করে দিয়েছেন। এখন আমাদের সিংড়ায় দুইটি সরকারি কলেজ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা আমাদের ব্যক্তি, পারিবারিক, রাজনৈতিক জীবনে বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া দর্শন যেনো প্রতিপালন করতে পারি। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, নেতার মৃত্যু হতে পারে কিন্তু আদর্শের মৃত্যু নেই। আজ আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে তুলে ধরতে পারছি।

নতুন প্রজন্মের জন্য কর্মসংস্থান করতে সরকারের উদ্যোগের কথা তুলে ধরে পলক বলেন, বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালে ১০ জানুয়ারি যুদ্ধবিদ্ধস্ত বাংলাদেশকে সোনার বাংলা করতে একটি অসাম্প্রদায়িক, প্রগতিশীল ও বিজ্ঞান মনস্ক প্রজন্ম গড়ে তুলতে ২০ মিনিটের একটি সংক্ষিপ্ত ভাষণ দিয়েছিলেন। আর তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে মাত্র ১৩ বছরে সততা, সাহসিকতা ও দূরদর্শীতা দিয়ে ১ কোটি ৩০ লাখ মায়েদের কাছে ছাত্র-ছাত্রী ভাই-বোনদের শিক্ষাবৃত্তির টাকা টাকা মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল পদ্ধতিতে পাঠিয়ে দিচ্ছেন। শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার, হাইটেক পার্ক করেছেন, টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার ও টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ করে দিয়েছেন।

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে ৮নং শেরকোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগী সংগঠন এর উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

৮ নং শেরকোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ হযরত আলীর সভাপতিত্বে সিংড়া জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোঃ ওহিদুর রহমান, সিংড়া পৌর মেয়র মোঃ জান্নাতুল ফেরদৌস,শেরকোল সমজান আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ রেজাউল ইসলাম, অধক্ষ্য মোঃ লুৎফুল হাবিব রুবেল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Don`t copy text!