চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার আরামবাগে নয়ন হত্যার ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৬ আসামি গ্রেফতার ও হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার আরামবাগে ঈদের দিন রোববার (১০ জুলাই) সন্ধ্যায়, পূর্ব বিরোধের জের ধরে কতিপয় সন্ত্রাসী পৌর এলাকার ১ নং কলোনীপাড়ার লিয়াকত আলীর ছেলে নয়ন আলী (২৪) কে কুপিয়ে রক্তাক্ত গুরুতর জখম করে। পরে গুরুতর আহত নয়ন আলীকে প্রথমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ২৫০ সয্যা বিশিষ্ট জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে অবস্থার অবনতি হলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে। একইদিন রাত সোয়া ৯টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরন করলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানায় ৮ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা রুজু হয়।

ঘটনার পর পরই ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদঘাটন ও ঘটনার সহিত জড়িত আসামীদের গ্রেফতারের নিমিত্তে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ সুপার, এএইচএম আব্দুর রকিব পিপিএম-বিপিএম (বার) এর প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ ও সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাফফর হোসেনের নেতৃত্বে যৌথ অভিযানে অত্র জেলার শিবগঞ্জ থানা এলাকা হতে সুকৌশলে আসামী রাব্বি (২৫) এবং আলম (২৪) কে হাতেনাতে গ্রেফতার করে। পরে আসামী রাব্বি এবং আলমের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাজশাহী জেলার পুঠিয়া থানা এলাকা থেকে নয়ন হত্যাকারী মূল আসামী একই এলাকার সাইফুল ইসলামের ছেলেদ্বয় আলিম ও আজিম কে গ্রেফতার করা হয়।

আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সহিত জড়িত অপর আসামী শাহরিয়ার আলম সনু-কে গ্রেফতার করা হয়। জিঞ্জাসাবাদে আসামীদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তাদের নিয়ে অভিযান চালিয়ে ঘটনাস্থলের পাশ থেকে হত্যা কাজে ব্যবহৃত একটি ছুরি জব্দ করা হয়।

অতঃপর আসামীদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সদর মডেল থানাধীন ফকিরপাড়া পানির ট্যাংকির উত্তর পার্শ্বে সীমানা প্রাচীর সংলগ্ন লেবু বাগানের ভিতরে মাটির তৈরী সুড়ঙ্গের মধ্য হতে ২ টি চাইনিজ কুড়াল, ৪ টি লোহার কাতা, ৩ টি হাসুয়া, ২ টি তলোয়ার ও ১ টি খড়গ উদ্ধার করা হয়।

এ সংক্রান্ত সকল আসামিদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.