আব্দুস সবুর, বালিয়াডাঙ্গী (ঠাকুরগাঁও):

জমি লিখে না দেওয়ায় ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে সালমা বেগম (৬০) বছর বয়সী এক বৃদ্ধাকে মারধর করে বাড়ী থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ছেলে আনোয়ার হোসেন খানের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) দুপুরে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভানোর ইউনিয়নের কলন্দা পশ্চিমপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহত বৃদ্ধা বর্তমানে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আহত বৃদ্ধা সালমা বেগম উপজেলার ভানোর ইউনিয়নের কলন্দা পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত মর্তুজা আলীর স্ত্রী।

আহত বৃদ্ধা সালমা বেগম জানান, আমার সরকারি চাকুরীতে অবসর নেওয়ার পর মৃত্যুবরণ করে। তার মৃত্যুর পর অবসরজনিত ভাতা আমি উত্তোলন করে জীবিকা নির্বাহ করছি। ছোট ছেলে শরিফুল ইসলাম চাকুরির সুবাদে পরিবার পরিজন নিয়ে দিনাজপুরে বসবাস করছেন। বড় ছেলে আনোয়ার হোসেন খান গত ১ মাস আগে আমার নিকট থেকে টাকা দাবি করলে আমি টাকা প্রদানে অস্বীকৃতি প্রদান করি। পরে জোর করে অবসর ভাতা উত্তোলনের ২৫ হাজার টাকা এবং আমার ব্যবহৃত গহনা নিয়ে বিক্রি করে দেয়। এ ঘটনার পর আমি স্থানীয় চেয়ারম্যান ও থানায় মৌখিক ভাবে অবগত করার পর আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে মারপিট করে।

তিনি আরও জানান, প্রথম অবস্থায় নিজের ছেলে হওয়ায় চুপ ছিলাম। মঙ্গলবার সকালে আমার নামে থাকা সকল সম্পত্তি রেজিষ্ট্রি নেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করলে আমি থানায় অভিযোগ আসছিলাম। এরমধ্যে রাস্তায় আটকে জুতা ও লাঠি দিয়ে বেধরক মারপিট করে। গুরুতর অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে ভর্তি করেছেন। আমি ছেলের শাস্তির দাবি করছি।

বৃদ্ধার কন্যা সাবিনা আক্তার জানান, বাবার মৃত্যুর পর আমার ভাই আমার মাকে জমি রেজিষ্ট্রি করে নেওয়ার জন্য একাধিকবার মারপিট করেছে। আমার মা অনেক সময় পালিয়ে আমার বাড়ীতে থাকতো। আজকে মাকে মারপিটের কথা শুনে আমি উদ্ধার করতে গিয়েছিলাম। আমাকেও মারধর করেছে। আমিসহ আমার মা আইনের আশ্রয় নিয়েছি। স্থানীয় থানা এবং ইউএনওকে অভিযোগ দিয়েছি। আশা করছি তারা সুবিচার করবেন।

মারপিটের অভিযোগ অস্বীকার করে বড় ছেলে আনোয়ার হোসেন খান মুঠোফোনে জানান, আমার মায়ের মাথার সমস্যা রয়েছে। তিনি বিভিন্ন সময়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করে বেড়ানোই তার কাজ। আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করতেই আমার শত্রুপক্ষের লোকজনের সাথে হাত মিলিয়ে এসব করে বেড়াচ্ছেন।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যোবায়ের হোসেন, বৃদ্ধা মাকে মারপিটের অভিযোগটি আমার দপ্তরে জমা দিয়েছিল। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বালিয়াডাঙ্গীর থানার ওসির নিকট পাঠানো হয়েছেন।

বালিয়াডাঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খায়রুল আনাম জানান, একটি অভিযোগ ইউএনও’র দপ্তর থেকে এসেছে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত করবে। অভিযোগের সত্যতা পেলে আইননানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.