picsart 12 30 04.25.00

মোঃ ইলিয়াস শাহ

জামালপুরের বকশীগঞ্জে নিজ ঘরের তালা ভেঙ্গে বাসনা বেগম (৩০) নামে এক বিধবা নারীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। বাসনা বেগম ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ কামালপুর মৃতঃইয়াসিন আলীর স্ত্রী। আট বছর আগে তার স্বামীঃ কিডনি জনিত রোগে মারা যান পরবর্তীতে এক মেয়ে নিয়ে ঐ বিধবা নারী বালুর গ্রামে অভাব অনটনের মধ্য দিয়ে তার মায়ের বাড়িতেই দর্জি সেলাইয়ের কাজ করতেন ঘটনার দিন
শুক্রবার (২৯ ডিসেম্বর) রাত ১১ টার দিকে বকশীগঞ্জ থানা পুলিশ বালু গ্রামের নিজ ঘর থেকে ওই মরদেহ উদ্ধার করে।
জানা গেছে, স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে বাসনা বেগম তাঁর ৮ বছর বয়সি কন্যা সন্তানকে নিয়ে মায়ের বাড়িতেই বসবাস করেন।
শুক্রবার সন্ধ্যায় বাসনা বেগমকে বাড়িতে না দেখে খোঁজাখুুঁজি করতে থাকেন তার মা রশিদা বেগম। তাঁকে কোথাও না পেয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানানো হয়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর বাসনা বেগমকে না পেয়ে রাত ৯ টার দিকে তাঁর নিজ ঘরের দরজার বন্ধ তালা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে মেঝেতে রক্তাক্ত মরদেহ পরে থাকতে দেখে ধানুয়া কামালপুর ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান লাকপতি। তিনি বকশীগঞ্জ থানা পুলিশকে জানালে রাত ১১ টার দিকে পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে। বাসনা বেগমের মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
স্থানীয়দের ধারণা ভাইদের সঙ্গে জমিজমা নিয়ে বিরোধ ও পারিবারিক কলহের জের ধরে তাকে খুন করা হতে পারে।
বকশীগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ আবদুল আহাদ খান জানান, খবর পেয়ে রাতেই রক্তাক্ত মরদেহটি উদ্ধার করা হয়েছে এবং শনিবার সকালে ময়না তদন্তের জন্য জামালপুর মর্গে পাঠানো হয়েছে। বিধবা বাসনা বেগমের খুনের ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

মোঃ ইলিয়াস শাহ
দৈনিক সোনালী সময়
বকশীগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *