এমদাদুল হক মাসুম, ডোমার প্রতিনিধিঃঃ
নিলফামারীর ডোমার পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের সবুজ পাড়ায় পৌরসভার রাস্তায় গাছ পরে থাকলেও পৌর কর্তৃপক্ষের ভিন্ন আচরন।
সরজমিনে গিয়ে দেখা জানা জায় গত ২০ মে সন্ধায় ঝড়ে সবুজ পাড়ার আলিমুল ইসলামের বাড়ির বেড়া ঘেশে বেরে উঠা তারই ছোট ভাই এনামুল হকের বিশাল একটি গাছ রাস্তার উপর পরে যায়। পরেজাওয়া রাস্তার পিছনেই বেশকিছু বাড়ির মানুষের চলাচলে বিঘ্ন ঘটলে বিষয়টি ওয়ার্ড কমিশনার কাওছার আলমকে জানানোও হয়। এরপর গাছের মালিক এনামুল ও বাড়ির মালিক বড় ভাই আলিমুলের মধ্যে গাছ পরে জাওয়া নিয়ে সন্দেহ এবং বিবাদ শুরু হয়।
এনামুল পরিবারের দাবী গাছের সেকড় আলিমুল কেটে গাছ ফেলে দেয়ার অবস্থা তৈরী করে রাখে এবং সেদিন সামান্য ঝড়ে গাছটি রাস্তার উপর পরে জায়। অন্যদিকে আলিমুল পরিবারের দাবী গাছের সেকড় তার বাড়ির ভিতরে চলে আসে এবং বাড়ির কাজের প্রয়োজনেই তা কাটতে হয়েছে, তবে শেকড় কাটার বিষয়ে এনামুল হককে জানানো হয়নি বলেও তারা স্বীকার করেন। দুই ভাইয়ের পুর্বের বিরোধ, গাছ পরে মানুষ চলাচলে অসুবিধা, বেশ কয়েকদিনেও চলাচলে রাস্তা সাভাবিক করার বিষয়ে প্রতিবেদক কমিশনার কাওছার আলমের কাছে জানতে চাইলে, তিনি বলেন প্যানেল মেয়রকে বিষয়টি অবগত করা হয়েছে উভয় পক্ষের সাথে কথা বলে গাছটি অপসারন করা হবে, বললেও তা আর হয়নি।
উল্লেখ্য গাছের মালিক এনামুল সহ এলাকায় অনেকে অভিযোগ করে বলেন, বিরোধের কারনেই গাছটির এই অবস্থা। আর রাস্তায় চলাচলকারীরা বলেন তাদের দুই ভাইর বিরোধ কবে মিটবে তা তাদের বিষয়, কিন্তু গাছটি অপসারন না হওয়ায় আমাদের চলাচলে খুব অসুবিধা হচ্ছে।
এ বিষয়ে প্যানেল মেয়র সেলিম রেজার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কাওছারকে গাছটি অপসারনের জন্য বলা হয়েছে। কিন্তু সে তা করেছে কিনা তা আমি জানিনা।
#

Leave a Reply

Your email address will not be published.