তানোর(রাজশাহী)প্রতিনিধিঃ

রাজশাহীর তানোর পৌরভবনে কথিত কর্মসুচি নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে ফের আলোচনায় উঠে এসেছে মুন্ডুমালা পৌর মেয়র সাইদুর রহমান, উঠেছে সমালোচনার ঝড় বইছে মুখরুচোক গুঞ্জন। জানা গেজে, ২৩ জুন বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে তানোর পৌর ভবনে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের ব্যনারে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক আব্দুল্লাহ্ আল মামুনের সঞ্চালনায় ও সভাপতি গোলাম রাব্বানীর সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুল সরকার পাপুল। অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষক লীগের সম্পাদক ও প্যানেল মেয়র আরব আলী, তানোর পৌর মেয়র ইমরুল হক, মুন্ডুমালা পৌর মেয়র সাইদুর রহমানপ্রমুখ ।এদিকে অসর্থিত সুত্র জানায়, মুন্ডুমালা পৌর মেয়র সাইদুর রহমান এদিন স্থানীয় সাংসদকে হাইব্রিড, অনুপ্রবেশকারী ও মাদক সম্রাট আখ্যাদিয়ে বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জননেতা রাব্বানী ভাই দলীয় মনোনয়ন না পেলেও ফারুক চৌধুরী পাবেন না ,নির্বাচনের পর তাকে খুঁজে পাওয়া যাবে না, তিনি যেনো মনোনয়ন না পান সেজন্য আমাদেরকে আরো কঠোর অবস্থান নিতে হবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জৈষ্ঠ নেতা বলেন, এক সময়ের কুলির সরদার ও চোরাকারবারি মেয়র সাইদুর রহমানের এমন মানহানিকর বক্ত্যর খবর ছড়িয়ে পড়লে নেতাকর্মীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে, বিরাজ করছে বিস্ফোরণমুখ পরিস্থিতি। এবিষয়ে জানতে চাইলে মেয়র সাইদুর রহমান এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন, তবে কোনো বক্তব্য রাখেননি। তিনি বলেন, কেউ উদ্দেশ্যেপ্রণোদিত হয়ে এসব মিথ্যাচার করতে পারে যার কোনো ভিত্তি নাই। এবিষয়ে তানোর পৌর মেয়র ইমরুল হক বলেন, কোন সভা হয়নি।এবিষয়ে গোলাম রাব্বানী বলেন, আমরা হাতেগোনা কয়েকজনকে নিয়ে সভা করেছি। পৌরসভায় দলীয় সভা করা যায় কি না জানতে চাইলে তিনি জানান অল্প পরিসরে করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Don`t copy text!