তানোর(রাজশাহী)প্রতিনিধিঃ
রাজশাহীর তানোরে নীতিমালা লঙ্ঘন করে ভিপি সম্পত্তির গাছ কেটে আত্মসাৎ ও পানি প্রবাহের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আরসিসি পিলার দিয়ে অবৈধভাবে পাকা বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। অবৈধ স্থাপনা নির্মাণে প্ল্যানের অনুমোদন দিয়েছে পৌরসভা। তানোর পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড গোল্লপাড়া মহল্লার টিপটিপি ডাঙায় অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় মহল্লাবাসীর পক্ষে আব্দুল জলিল বাদি হয়ে একই মহল্লার
লুৎফর রহমান মুন্সিকে বিবাদী করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। কিন্ত্ত দীর্ঘদিন অতিবাহিত অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ বন্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এতে গ্রামবাসীর মধ্যে চরম অসন্তোস উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে।
স্থানীয়রা জানান, তানোর পৌরসভার গোল্লাপাড়া মহল্লার মৃত সিরাজ উদ্দিন মুন্সির পুত্র লুৎফর রহমান মুন্সি প্রভাব বিস্তার করে এই অবৈধ পাকা বাড়ি নির্মাণ করছে। সুত্র জানায়, গোল্লাপাড়া মৌজার, আরএস ১৪১ ও ১৮২ নম্বর খতিয়ানের, আরএস ৪৫৫, ৪৩৪, ৪৪১ ও ৪৫৪ নম্বর দাগে প্রায় এক একর ৩৩ শতক সশ্পত্তি ভিপি রয়েছে। এছাড়াও বাড়ির দেয়াল ঘেঁষে ৩০ লিংক সরকারি খাল রয়েছে, সেই খাল ভরাট ও পানি প্রবাহের পথে প্রতিবন্ধকতা সুষ্টি করে খালের মাত্র ১০ লিংক অবশিষ্ট রেখেছেন। অবৈধ এই বাড়ি নির্মাণ সম্পন্ন হলে বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতার কারণে কয়েকটি গ্রাম ক্ষতির মুখে পড়বে। হঠাৎপাড়া মহল্লার রইচ উদ্দিন মুন্সি, আলতাব হোসেন ও আব্দুল জলিল বলেন, পুরো জায়গা ভিপি সম্পত্তি, শুধু জায়গা না তিনি পানি প্রবাহের খালও দখল করেছেন। তারা বলেন, এখানে বাড়ি নির্মাণ হলে বর্ষা মৌসুমে পানিতে চলাচলের রাস্তা ডুবে যাবে। তখন কোন উপায় থাকবে না। তাছাড়া অভিযোগ দেয়ার প্রায় তিন মাস অতিবাহিত হলেও এখানো কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এবিষয়ে লুৎফর রহমান মুন্সি
জানান আগে সম্পত্তি ভিপি ছিল এখন জমা হয়েছে। কিভাবে হল জানতে চাইলে তিনি জানান, যেই ভাবে হয় সেই ভাবেই হয়েছে।
এবিষয়ে তানোর পৌর মেয়র ইমরুল হক জানান, যদি ভিপি সম্পত্তি হয় তাহলে প্ল্যান বাতিল করা যাবে, সে সব অপশন আছে। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পংকজ চন্দ্র দেবনাথ জানান, অভিযোগের বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হবে। এবিষয়ে ভুমি অফিসের কর্মকর্তা(তহসিলদার)
লুৎফর রহমান বলেন, ভিপি সম্পত্তির উপর আরসিসি পিলার দিয়ে (স্থায়ী স্থাপনা) পাকা বাড়ি নির্মাণের কোনো সুযোগ নাই।এবিষয়ে লুৎফর রহমান মুন্সীর ছোট ভাই রইচ উদ্দিন মুন্সী বলেন, এটা ভিপি সশ্পত্তি, কিন্ত্ত তার ভাই লুৎফর জালিয়াতি করে ভিপি জমির খাজনা-খারিজ করেছেন। তিনি বলেন, এই বাড়ি নির্মাণ সম্পন্ন হলে কয়েকটি গ্রামের মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়বে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Don`t copy text!