নওগাঁ প্রতিনিধি:

নওগাঁ বাঙ্গাবাড়িয়া এক মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি-ঘর ভাংচুর, লুটপাট অভিযোগ উঠেছে। নওগাঁ বাঙ্গাবাড়িয়া সদর কলেজ পাড়ার বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যু খাজা মঈনুদ্দিন মিয়ার বাড়িতে সন্ত্রাসীর হামলা চালায়।


অভিযোগ সূত্রে জানা যায় আসামি ১/মোঃ আঃ লতিফ মন্টু(৪০) পিতা মোঃ মকবুল হোসেন, ২/ মোঃ সোহাগ (২৩),পিতাঃ মোঃ আঃ খালেক, ৩/মোঃ তপু রায়হান সাদা(৪৬), ৪/ মোঃ মজনু উভয় পিতা মোঃ মকবুল,৫/ মোঃ হৃদয় (২২), পিতা মোঃ আঃ মালেক, ৬/ মোঃ সুমন (৩৬), পিতা মোঃ ওসমান,৭/মোঃ শিপলব (৪০), পিতা মৃত মকা ডাকাত, সর্ব সাং কোমাইগাড়ী, থানা ও জেলা নওগাঁ।গত (১২) জুন ৬ নং আসামির পিতাকে কে বা কারা মারপিট করিয়া পা ভেঙ্গে দেয়। উপরোক্ত আসামীগন ধারণা করেন যে, মিলন ৬ নং আসামীর পিতার পা ভেঙে দিয়েছে। আসাীগন উক্তরূপ ধারণা কোরিয়া গত (১২) জুন বেলা আনুঃ ২.০০ ঘটিকার সময় আসামীগন বেআইনী জনতায় দলবদ্ধ হইয়া হাতে লাঠি, লোহার রড, রামদা, ধারালো হাসুয়া, চাইনিচ কুড়াল, ইত্যাদি নিয়ে বাড়ির মেইন গেটে আসিয়া মেইন গেট ভাঙ্গিয়া বাড়ির ভিতরে অনাধীকার প্রবেশ করিয়া আতঙ্কিত ভাবে পরিবারের লোকজনদের এলোপাথারী মারপিট করিতে লাগে। আসামীদের ভয়ে বাড়ীর সকল সদস্য দৌড়াইয়া পালিয়ে যায়। তখন সকল আসামীগান মিলনকে খোঁজাখুঁজি করতে লাগে। আসামীগন মিলনকে বাড়িতে না পাইয়া বাড়ীর টিভি, দরজা, সোকেস, আলমারী সহ বাড়ীর সকল আসবার পত্র ভাঙচুর কোরিয়া আনুঃ ৮০,০০০/- হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে। উক্ত সময় ৬ নং আসামী সোকেসের ভিতরে থাকা ৯০,০০০/- হাজার টাকা চুরি করে নেয়। মিলনের মাতাঃ মোছাঃ আম্বিয়া বেওয়া আসামীদের উক্তরুপ আচরণ করার কারণ জানতে চাইলে ১নং আসামী তার হাতে লোহার রড দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথায় আঘাত করিলে ডান হাত দিয়ে তাহা প্রতিহত করিলে ডান হাতে লাগিয়া জখম প্রাপ্ত হয়। তখন ২নং আসামী পরনের কাপড় টানা হেচড়া কোরিয়া শ্লীলতাহানি করে। মিলনকে মৃত্যুর উদ্দেশ্যে মারপিট শুরু করলে পরিবারের সদস্যরা ডাকচিৎকার করতে লাগে। তখন আসামীগন মিলনকে হত্যা করিয়া লাশ গুম করার হুমকী দিয়ে চলে যায়।


এ বিষয়ে নওগাঁ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল সাংবাদিকদের বলেন তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.