শেরপুর প্রতিনিধিঃ
শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার ৮ নং রুপনারায়ণ কুড়া ইউনিয়নের আয়নাতলী গ্রামের বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১২ বছর ধরে অবহেলিত। আয়নাতলী বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা কালীন সভাপতি তারাগঞ্জ ফাজিল মাদ্রাসার অবঃপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষক জনাব মাওলানা মোঃ জমশেদ আলী বলেন,আমি এই আয়নাতলী গ্রামে অনেক বছর যাবত বসবাস করে আসছি।অত্র এলাকার বেশিরভাগ মানুষ অশিক্ষিত। যার কারণে আমাদের এলাকায় বাল্যবিবাহ, চুরি,শিশুশ্রম, মারামারি,হানাহানি সহ নানা প্রকার অসামাজিক কার্যকলাপ দেখে আসছি। তাই আমি অনেক চিন্তা করে দেখলাম এসব অসামাজিক কার্যকলাপ কিভাবে দূর করা যায়।তখনি আমি ২০০৯সালের সম্প্রতি এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের নিয়ে আলোচনা করি। আলোচনার একপর্যায়ে সবাই একবাক্যে বললেন আমাদের এলাকায় কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নেই তাই নানা প্রকার অসামাজিক কার্যকলাপে লোকজন লিপ্ত হয়। আমাদের কোমলমতি ছেলেমেয়েরা যাতে সু শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে এই সমাজকে অন্ধকার থেকে আলোয় নিয়ে আসতে পারে তাই আমাদের আয়নাতলীতে একটি প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তৈরি করা প্রয়োজন।সেই আলোচনার ভিত্তিতে আমরা সবাই মিলে আয়নাতলী বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি তৈরি করি কিন্তু দূঃখের বিষয় প্রায় ১২ বছর হয়ে গেল আমাদের এই বিদ্যালয়ে আজ পর্যন্ত কোনো সরকারি লোকের চোখ পড়লো না। এমনকি এই বিদ্যালয়ের কোনো শিক্ষার্থীকে দেয়া হয়নি নতুন বছরের পাঠ্য বইপুস্তক, যার কারণে এখন পর্যন্ত আয়নাতলী গ্রামে নানা প্রকার অসামাজিক কার্যকলাপ ঘটে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত । তাই আমি মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী ড. দিপু মনি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে করজোড়ে ভিক্ষা চেয়ে বলছি আমাদের আয়নাতলী বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করে এই গ্রামের কোমলমতি শিশুদের শিক্ষার সুযোগ করে দিয়ে তাদের ভবিষ্যতে সুন্দর জীবন গড়তে সুযোগ করে দিবেন।তাহলে আমাদের এই এলাকা থেকে বাল্যবিবাহ সহ সকল প্রকার অসামাজিক কার্যকলাপ দূর হবে ইনশাআল্লাহ। হালুয়াঘাটের আচকি পাড়া আধিবাসী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মৌলভী মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেন, মোহাম্মদ আলী আয়নাতলী বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে উনার সহকারী শিক্ষকদের নিয়ে বহু বছর যাবত বিনাবেতনে শিক্ষা প্রদান করে আসছে।আমি মনে করি সরকার তাদের কে ব্যাপকভাবে অবহেলিত করে রেখেছেন।তিনি আরও বলেন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের উচিত এই গ্রামে এসে পরিদর্শন করে তাদের শিক্ষা অধিদপ্তরকে অবহিত করা।তাই আমি মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী ড. দিপু মনি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জোরালো দাবি জানাচ্ছি দ্রুতগতিতে আয়নাতলী বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করে অত্র এলাকায় শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিবেন এবং শিক্ষকদের বেতনের ব্যবস্থা করে দিয়ে তাদের পরিবারের সকলের মুখে হাসি ফুটাবেন। উল্লেখ্য ; আয়নাতলি গ্রামে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় না থাকায় এলাকার ছোট্ট ছোট্ট কোমলমতি ছেলেমেয়েদের ৪/৫কিলো রাস্তা হেটে গিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করতে হয়। এতে না আছে শিক্ষার্থীদের শিক্ষায় মনযোগ না আছে অভিভাবকদের সন্তানের নিরাপত্তা এমন মন্তব্য করেন স্কুল প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলী,সরেজমিনে পরিদর্শনকালে জানা যায় বিদ্যালয়,প্রতিষ্ঠা কালীন সহ সভাপতি আলহাজ্ব মাওলানা মোঃ আবুল কাশেম,অবঃপ্রাপ্ত,অত্র প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শিক্ষিকা,গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও শিক্ষার্থী বৃন্দ। বলেন সরকার যেনো আমাদের আয়নাতলী বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করে আমাদের এলাকার কোমলমতি শিশুকিশোরদের শিক্ষার জন্য ৪-৫ কিলোমিটার রাস্তা হেটে স্কুলে যেতে না হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.