হাকিকুল ইসলাম খোকন ,যুক্তরাষ্ট্র সিনিয়র প্রতিনিধিঃ
গত ১ জুন ২০২২, বুধবার ঢাকায় প্রবাস মেলা অফিসে অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বিশিষ্ট লেখক জসীম উদ্দীন। এসময় তিনি প্রবাস মেলা’র কলা-কুশীলবদের সাথে আড্ডায়-আলোচনায় অংশ নিয়ে তার প্রবাস জীবনের নানা দিক তুলে ধরেন। এছাড়া তিনি তার সাহিত্যকর্ম নিয়েও আলোচনা করেন। আলোচনার এক ফাঁকে তার হাতে প্রবাস মেলা’র সৌজন্য কপি তুলে দেন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক শহীদ রাজু। খবর বাপসনিঊজ।

উল্লেখ্য, জসীম উদ্দিন একজন বাংলাদেশি আমেরিকান। ১৯৯০-এর পর থেকে তিনি স্থায়ীভাবে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সিটিতে বসবাস শুরু করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগ থেকে অনার্সসহ মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। শিক্ষাকালীন সময়ে তিনি ছিলেন একজন তুখোড় ছাত্রনেতা এবং বর্তমানে তিনি সক্রিয় রাজনীতিবিদ, রাজনৈতিক বিশ্লেষক, লেখক ও গবেষক। তার লেখা ছোট গল্প, নাটক, উপন্যাস, কবিতা এবং ম্যাগাজিনে প্রকাশিত হওয়ায় তিনি অনেক প্রশংসা কুড়িয়েছেন। তার লেখনিতে প্রকাশ পায় সমাজের অবহেলিত, নিষ্পেষিত মানুষের অধিকারের কথা, দেশের কথা, বিশ্বায়নের কথা। তিনি আমেরিকার বিখ্যাত নিউইয়র্ক ফ্লিম একাডেমিতে পড়াশোনা করেছেন।

২০১৫ ঢাকার একুশের বইমেলায় লেখকের দুটি ছোটগল্পগ্রন্থ ‘রূপালী ইলিশ’ ‘প্রেমের সীমান্তে’ ও একটি উপন্যাস ‘দ্য আমেরিকান ড্রিম’ প্রকাশিত হয়। তার লেখা ‘দ্য আমেরিকান ড্রিম’ এই প্রথম কোনো বাঙালি আমেরিকানের রোমান্টিক উপন্যাস ইংরেজি ভার্সনে মুদ্রিত হয়ে আমেরিকান পাবলিশার্স কোম্পানি বিশ্ববাজারে পাঠকের হাতে তুলে দিয়ে তাকে সমাদৃত করেছেন। বিশ্বের সেরা অনলাইন কোম্পানি অ্যামাজনেও বইটি বিক্রি হচ্ছে।

২০১৬ সালে ঢাকার একুশের বইমেলায় লেখকের তিনটি উপন্যাস ‘অনাথ’, ‘রতন’ ও ‘সবুজ…নষ্টা নারী’ পাঠকের হৃদয় ছুঁয়ে গেছে। বিশ্বসাহিত্য দরবারে জসীম উদ্দিন নিজেকে স্থান করে নিয়েছেন।

‘দ্য আমেরিকান ড্রিম’ উপন্যাসের গল্প নিয়ে জসীম উদ্দিনের পরিচালনায় ও আমেরিকান মূলধারা চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান বেল প্রডাকশন চলচ্চিত্রটির নির্মাণকাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। এপার বাংলা, ওপার বাংলার জন্য সিন-সিনারি প্রডাকশনের প্রযোজনায় বাংলা ভাষায়ও চিত্রায়ন হচ্ছে। ২০১৮ ঢাকার একুশে বইমেলায় লেখকের উপন্যাস ‘রক্সি টেরস্’ আকাশ প্রকাশনীর মাধ্যমে প্রকাশিত হয়। ২০২০।

জসীম উদ্দীন টেলিভিশন রিপোর্টার্স ইউনিটি অব বাংলাদেশের (ট্র্যাব) ২০২১-এর ২৭তম আসরে সাহিত্য সম্মাননা পেয়েছেন। বাংলা এবং ইংরেজি সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য আমেরিকার মূলধারার লেখক হিসেবে তাকে এই সম্মাননা দেয়া হয়।

তিনি বাংলাদেশের কুমিল্লা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার মাতা কাজী রুছিয়া খাতুন এবং পিতা মরহুম শিক্ষাবিদ, মাস্টার এমএ বারী। তার দুই সহোদর মোজাম্মেল হক ফারুক এবং মরহুম শহিদুল হক সেলিম বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.