আব্দুস সবুর(বালিয়াডাঙ্গী)ঠাকুরগাঁওঃ
ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার করিয়া কলন্দা গ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশী সন্ত্রাসীদের দু-দফায় হামলার ঘটনায় সাংবাদিক রুবেল রানার পরিবারের ৩ সদস্য গুরুতর আহত হয়ে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎধীন রয়েছেন। আহতরা হলেন- সাংবাদিকের ভাবী আনোয়ারা বেগম (৩৫) ও তার ১০ মাস বয়সের শিশু পুত্র ওমর ফারুক, মেঝো মেয়ে সুমাইয়া আক্তার শিমু (১৫)।
এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার করিয়া কলন্দা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে সাহাজাহান আলীর পোষ্য ২টি ছাগলছানা আজ সোমবার সকাল ১১ টায় প্রতিবেশী মরহুম বুধু মোহাম্মদের ছেলে এন্তাজুল হকের বাড়ীর উঠানে গেলে ওই সময় এন্তাজুল হক ও তার স্ত্রী লিলি বেগম এবং তাদের ছেলে মোস্তাকিম মিলে তাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। বিষয়টি টের পেয়ে সাহাজাহান আলীর স্ত্রী আনোয়ারা বেগম তার ছাগলছানা দুটি আনতে গেলে এসময় তারা সন্ত্রাসী কায়দায় বাঁশের লাঠি দিয়ে তাকে এলাপাথারীভাবে মারপিট করে এতে সে গুরুতর আহত হয়ে মাটিতে পাড়ে থাকে। পরে লোকজন ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে বাড়ীতে নিয়ে আসে। তবুও এন্তাজুল হকের বাড়ীর লোকজন অশ্লীল ভাষায় গালি গালাজ করতে থাকে।
কিছুক্ষণ পর সাহাজাহান আলী পরিবারের লোকজন অনুপস্থিতের সুযোগে আবারো এন্তাজুল হক ও তার লোকজন মিলে সাংবাদিক রুবেল রানার বাড়ীতে অনাধিকার প্রবেশ করে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে তার বড় ভাই সাহাজাহান আলীর স্ত্রী আনোয়ারা বেগম ও তার ১০ মাস বয়সের শিশু পুত্র ওমর ফারুক, মেঝো মেয়ে সুমাইয়া আক্তার শিমুসহ একই পরিবারের ৩ সদস্য গুরুতর আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করে। বর্তমানে তারা হাসপাতালে চিকিৎধীন রয়েছেন।
এ ঘটনায় সাংবাদিক রুবেল রানার পরিবারের পক্ষে থেকে মামলা করার প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে বলে জানা গেছে।

এবিষয়ে ৬ নং ভানোর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় একটি অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে মিমাংসা করার চেষ্টা করবো।
বালিয়াডাঙ্গী থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) খায়রুল আলম জানান, এ ঘটনায় কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি, অভিযোগ পেলে ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইন আইনুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.