চট্টগ্রামের রাউজান হলাদিয়া ইউনিয়নে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) হস্তক্ষেপে দশম শ্রেণি পড়ুয়া ১৬ বছরের এক কিশোরীর বাল্যবিবাহ বন্ধ হয়েছে।
শুক্রবার (৩ জুন) হলদিয়া ইউনিয়নের একটি কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত বিয়ের অনুষ্ঠান বন্ধ করা হয়।
ওই কিশোরী হলদিয়া ইউনিয়নের উত্তর সর্তা গাউছিয়া হাফেজিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। বর হলেন একই গ্রামের মোহাম্মদ জাফর আলমের প্রবাসী ছেলে মোহাম্মদ জামশেদুল আলম (সাইমন)।
জানা যায়, বৃহস্পতিবার গায়ে হলুদ শেষে শুক্রবার হলদিয়া ইউনিয়নের একটি কমিউনিটি সেন্টারে এ বিয়ের আয়োজন করা হয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সংবাদ পেয়ে রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুস সামাদ সিকদার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলামের মাধ্যমে বিয়েটি বন্ধ করেন।
এ প্রসঙ্গে চেয়ারম্যান বলেন, আমার ইউনিয়নে বাল্যবিবাহের আয়োজন হচ্ছে আমি জানতাম না। এমন কি ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যও জানতেন না। ইউএনও’র হস্তক্ষেপে ১৮ বছরের আগে বিয়ে না দেয়ার শর্তে মুচলেকা নেয়া হয়।
বিষয়টি নিশ্চিত করেন রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুস সামাদ সিকদার। তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া শিক্ষার্থীর বাল্যবিবাহ বন্ধ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, একাডেমিক ডকুমেন্ট অনুযায়ী ওই শিক্ষার্থীর জন্ম ২০০৬ সালের ৩০ এপ্রিল। আইন সবার জন্য সমান বলে বাল্যবিবাহ রোধে সবাইকে সচেতন থাকার নির্দেশ দেন নব নিযুক্ত রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দস সামাদ শিকদার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.