জুয়েল আহমেদ :
দেশে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস নৈরাজ্য ও দেশের শান্তিপূর্ণ পরিবেশকে অশান্ত করার প্রতিবাদে শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।নগরীর কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়। নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বৃষ্টি উপেক্ষা করে সকল নেতাকর্মীবৃন্দ সমাবেশে যোগদান করেন। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল।বক্তব্য রাখেন, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আসলাম সরকার, মীর ইসতিয়াক আহমেদ লিমন, নগর শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শরীফ আলী মুনমুন, নগর যুবলীগ সভাপতি রমজান আলী, নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাধারণ সম্পাদক জেডু সরকার, নগর ছাত্রলীগ সভাপতি নূর মোহাম্মদ সিয়াম। সমাবেশ সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের উপ-দপ্তর সম্পাদক পংকজ দে।সভাপতির বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল বলেন, দেশের শান্তিপূর্ণ পরিবেশকে বিএনপি অশান্ত করার পাঁয়তারা করছে। তারা যুদ্ধাপরাধী জামায়াতকে নিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। তাদের এহেন ষড়যন্ত্রের সমুচিত জবাব রাজপথে মোকাবিলা করবে আওয়ামী লীগ।ডাবলু সরকার বলেন, আর মাত্র ২৮ দিন। আগামী ২৫ জুন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়ন ও সম্ভাবনার এক নতুন দ্বার উন্মোচন করবেন স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে। এই উদ্বোধনের মধ্যে দিয়েই দক্ষিণবঙ্গ তথা বাংলাদেশের মানুষের এক স্বপ্নের মাইলফলক স্পর্শ করবে, আর ঠিক সেই সময় বিএনপি-জামায়াত বাংলাদেশের উন্নয়ন ও সম্ভাবনাকে নসাৎ করতে সারাদেশে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে চাই।কারণ তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা, উন্নয়ন ও সম্ভাবনাকে মেনে নিতে পারে না। তারা উন্নয়নের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না, জনগণের ভাগ্যোন্নয়নে তারা রাজনীতি করে না। তারা ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তে বিশ্বাসী, অন্যদিকে দেশরত্ন শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ উন্নয়ন, সমৃদ্ধির রাজনীতিতে বিশ্বাস করে।তিনি আরো বলেন, দেশের শান্তি শৃঙ্খলা ও রাজনীতির পরিবেশকে অশান্ত করার চেষ্টা করা হলে রাজপথে তাদেরকে দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে।সভায় বক্তারা বলেন, রাজনীতির নামে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসীরা দেশের শান্তিপূর্ণ পরিবেশকে অশান্ত করার চেষ্টা করছে। রাজপথে তাদেরকে সমুচিত জবাব দেয়ার জন্য বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীবৃন্দই যথেষ্ট।সভায় বক্তারা রাজশাহীর বিএনপির নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, সাংবাদিকরা আপনাদের কি এমন চিত্র ধারণ করেছিলো যে আপনারা তাদেরকে শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত করলেন। সাংবাদিকদের উপর যারা নির্যাতন করেছে তাদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি।এ সময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী, অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, ডা. তবিবুর রহমান শেখ, যুগ্ম সম্পাদক আহ্সানুল হক পিন্টু, দপ্তর সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম বুলবুল, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক মীর তৌফিক আলী ভাদু, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ফিরোজ কবির সেন্টু, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রবিউল আলম রবি, শ্রম সম্পাদক আব্দুস সোহেল, কোষাধ্যক্ষ হাবিবুল্লাহ ডলার, সদস্য শাহাব উদ্দিন, আশরাফ উদ্দিন খান, আতিকুর রহমান কালু, আব্দুস সালাম, তোজাম্মেল হক বাবলু, সৈয়দ মন্তাজ আহমেদ, মজিবুর রহমান, ইসমাইল হোসেন, ইউনুস আলী, খায়রুল বাশার শাহীন, মোখলেশুর রহমান কচি, থানা আওয়ামী লীগের মধ্যে রাজপাড়া থানার সাধারণ সম্পাদক শেখ আনসারুল হক খিচ্চু, বোয়ালিয়া (পূর্ব) থানার সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ, বোয়ালিয়া (পশ্চিম) থানার সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান রতন, মতিহার থানার সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন, নগর শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ওয়ালী খান, নগর কৃষক লীগ সভাপতি রহমতউল্লাহ সেলিম, সাধারণ সম্পাদক সাকের হোসেন বাবু, নগর মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সালমা রেজা, সাধারণ সম্পাদক কানিজ ফাতেমা মিতু, নগর ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ডা. সিরাজুম মুবিন সবুজ, নগর তাঁতী লীগের সদস্য সচিব মোকসেদ-উল-আলম সুমন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.