received 1098061904909383

মোঃ মনোয়ার হোসেন, রাজশাহী

গত ৭ জানুয়ারী জাতীয় নির্বাচনে একটি শক্তিশালী নৌকা বিরোধী সিন্ডিকেট কাঁচি দিয়ে নৌকা কাটার চেষ্টা করেছেন। নৌকার বিপক্ষে কাঁচি’র পক্ষে সক্রিয় ভূমিকায় থেকে বিভিন্ন মিথ্যা প্রোপাগাণ্ডা ছড়িয়ে রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের নির্বাচনকে বির্তকিত করার অপচেষ্টা করেছেন। তাঁরা ব্যর্থ হয়েছেন তবে হাল ছাড়েননি, অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন।

নির্বাচনে রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে বিপুল ভোটে জয়ী হন নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ।

received 421685347048276

অপতৎপরতা চালিয়ে সদ্য নির্বাচিত এমপি আবুল কালাম আজাদকে সমালোচিত করতে একের পর এক মিথ্যা তথ্য বাজারে আমদানি করছেন চক্রটি। এরই ধারাবাহিকতায় একটি অডিও বিকৃত করে তার বরাত দিয়ে ইতোমধ্যে চক্রটির প্রধান প্রোপাগাণ্ডা ছড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

বাগমারা’র তৃণমূল আ’লীগ বলছেন, নির্বাচনে পরাজিত হয়ে একজন নৌকা বিরোধী দলীয় পদের অধিকারী বিভিন্ন বিতর্কের জন্ম দিচ্ছেন। তারা নির্বাচিত এক সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে মিথ্যা গঠনতন্ত্র ও দলীয় প্রধানসহ হাইকমান্ডের নামে মিথ্যা অপবাদ ছড়িয়ে দিচ্ছেন। এটা বাগমারাবাসী মেনে নিবে না। তারা এমন অপতৎপরতা রুখে দিতেও বদ্ধপরিকর।

বাগমারা আ’লীগের নেতৃবৃন্দ বলছেন, গত ১৩ মার্চ বাগমারায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর কমপ্লেক্সে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন সদ্য নির্বাচিত এমপি আবুল কালাম আজাদ। ওই সভায় কোনো প্রকার বেফাঁস কথা বার্তা হয়নি। ওইখানকার অডিও সুপার এডিট করে বাজারে ছাড়া হচ্ছে। এসব চক্রান্ত করে লাভ নাই বলেও হুশিয়ারি দেন তাঁরা।

উক্ত অনুষ্ঠানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার আবুলের সঞ্চালনায় ওই সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন, জাকিরুল ইসলাম সান্টুসহ কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

নেতারা বলেন যে মিথ্যা প্রোপাগাণ্ডা ছড়ানো হচ্ছে সেটা ঠিক না। আমরা এর তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানাই।

কথা বললে বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের  সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার আবুল বলেন, বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগ এখন সুসংগঠিত ও সংঘবদ্ধ। দু- একজন যারা নির্বাচনেও নৌকার বিপক্ষে ছিলেন তারাই বর্তমানে নির্বাচিত নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছেন। তাঁর প্রতিটি প্রোগ্রামে আমি থাকি, কোথাও কোনো জায়গায় তিনি দলের বিরুদ্ধে কথা বা বেফাঁস মন্তব্য করেন না। এটা অপপ্রচার মাত্র। আমরা বাগমারাবাসী এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। ঘটনায় উপজেলার একজন কাঁচি প্রতীকের ভোট করা নৌকা বিরোধী নেতা জড়িত আছেন বলে আমরা মনে করছি। বিষয়টি আমরা সাংগঠনিকভাবে দেখবো। গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে
প্রোপাগাণ্ডে মদত দেওয়া ওই ব্যক্তির উচিত নয় বলে তিনি মনে করেন।

এবিষয়ে রাজশাহী জেলা আওয়ামী শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মাহাবুর রহমান বলেন, যারা গত জাতীয় নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করেছেন তারাই এখন অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছেন। এসব অপপ্রচার করে লাভ নাই। বাগমারাবাসীসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ জানেন সব। আমরা এসব অপপ্রচার নিয়ে চিন্তিত না। বরং এসব অপপ্রচার কারীদের দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে।

কথা বলতে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং বাগমারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অনিল কুমার সরকারকে ফোন দেওয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তাই তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *