নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
বগুড়ার শেরপুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের রাজারদিঘী গ্রামের নারী রহিমা বেগম নিজ সন্তানের মুখে একমুঠো ভাত তুলে দেওয়ার জন্য বেছে নিয়েছেন সংগ্রামী জীবন।

রহিমার স্বামী মোহাম্মদ আলী দুই সন্তানসহ রহিমাকে ভাত কাপড় না দেওয়ার।

সন্তানের মুখে একমুঠো ভাত তুলে দেওয়ার জন্য রহিমা বেগম পেশা হিসাবে বেছে নিয়েছেন আখ বিক্রি।

তিনি মির্জাপুরসহ এলাকার বিভিন্ন হাট বাজারে এভাবেই আখ বিক্রি করে সংসারের হাল ধরে ছোট শিশুদের মুখে তুলে দিচ্ছেন একমুঠো ভাত।

তারসাথে গণমাধ্যম কর্মীরা কথা বললে তিনি বলেন আমার স্বামী ভাত কাপড় দেয়না৷
এই ব্যবসা করে কখনো খেয়ে কখনো না খেয়ে সন্তানদের নিয়ে জীবন যাপন করছি।
নিজস্ব কোনো জমিজমা নেই।

সরকারিভাবে কোনো অনুদান পেয়েছেন কিনা এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন না পাইনি।

রহিমার সাথে কথা বলার সময় বাজারের বিভিন্ন লোকজন এগিয়ে আসে তারা জানান এই মহিলা সন্তানদের নিয়ে অনেক কষ্টে জীবন যাবন করছেন।
তারা শেরপুর উপজেলা প্রশাসন ও শেরপুর থানা পুলিশকে সংগ্রামী নারী রহিমার পাশে দাঁড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.