সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি


সুনামগঞ্জের বন্যাকবলিত এলাকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করেছেন পুলিশের মহা পরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার)।




বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি হেলিকপ্টার যোগে তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যায়ল মাঠে আসেন। মাঠে নেমে বানবাসীদের উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতার ব্যাপারে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন এবং প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করেন।



পরে বাদাঘাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও আমবাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আশ্রয় কেন্দ্রে থাকা বন্যাদুর্গতদের সঙ্গে কথা বলেন এবং বাংলাদেশ পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্ট্রের পক্ষ থেকে এক হাজার বন্যার্তদের মাঝে বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন তিনি।




এসব খাদ্যের মধ্যে ছিল, চিড়া. চিনি, বিস্কুট, গুড়া দুধ, লবণ, বিশুদ্ধ পানি,খাবার স্যালাইন, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট,ওষুধ, মোমবাতি, দিয়াশালা, খাবাব প্লেইট ও গ্লাস। পরে স্পিডবোর্ড যোগে পাশ্ববর্তী উপজেলা বিশ্বম্ভপুর থানায় আশ্রায় নেয়া শতাধিক বন্যাদুর্গতদের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ করেন তিনি।




এসময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, বন্যার পানি কমতে শুরু করেছে, এটি একটি ভালো খবর। আমরা চেষ্টা করছি সুনামগঞ্জের রিমোট এলাকা যেগুলো আছে সেখানে যাওয়ার। যেখানে সহজে যাওয়া যায়, পৌঁছা যায় সেখানে তো সবাই যায়।



কিন্তু সেসব জায়গায় সহজে যাওয়া যায়না, যেমন সীমান্তবর্তী জায়গাগুলো সেখানে লোকজন কেমন আছেন তা দেখার দরকার। আমি আজকে চেষ্টা করেছি আমার সহকর্মীদের নিয়ে সেসব জায়গায় ঘুরে বানভাসি মানুষের খোঁজখবর নিতে।




এসময় উপস্থিত ছিলেন- সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহাম্মেদ পিপিএম (বার), অতিরিক্ত ডিআইজি বিপ্লব বিজয় সরকার, সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার (পদোনতিপ্রাপ্ত অতিরিক্ত ডিআইজি) মো. মিজানুর রহমান বিপিএম, নৌ পুলিশ সিলেট অঞ্চলের পুলিশ সুপার শম্পা ইয়াসমিন, সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশের ইন সাভির্স ট্রেনিং সেন্টারের পুলিশ সুপার নিকুলিন চাকমা, অরিক্ত সুপার জয়নাল আবেদীন, সহকারী পুলিশ সুপার তাহিরপুর সার্কেল শাহিদুর রহমান, তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আব্দুল লতিফ তরফদার, ইউপি চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন, আজাদ হোসেন, মাসুক মিয়া প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Don`t copy text!