স্টাফ রিপোর্টারঃ-



নোয়াখালী সুবর্ণচর উপজেলার ৫নং চরজুবিলী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডে পরিত্যক্ত একটি ঘর থেকে চুরি হওয়া ১০ বস্তা সয়াবিন-বাদাম-মুগডাল উদ্ধার করেছে চর জব্বার থানা পুলিশ। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) রাত ৯ টায় উপজেলার চরজুবলি ইউনিয়নের আতব আলী বাজারের পাশে সেলিম মেম্বার এর পুরোনো বাড়ির একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে সয়াবিন-বাদাম-মুগডালের বস্তাগুলো উদ্ধার করা হয়।



জানা যায়, গত রবিবার স্থানীয় হারিছ চৌধুরী বাজারের ব্যবসায়ী কেফায়েত উল্লাহর দোকান থেকে ২৬ বস্তা সয়াবিন-বাদাম-মুগডাল চুরি হয়। এ ঘটনায় ব্যবসায়ী কেফায়েত উল্লাহ চরজব্বার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে চরজুবলী ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড মুসলিম হুতেগো বাড়ির পরিত্যক্ত ঘর থেকে চুরি হওয়া সয়াবিন-বাদাম-মুগডালের ১০ বস্তা মালামাল উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য সেলিম দীর্ঘ ১১ বছর ধরে সে ভাড়া বাসায় থাকেন, পুরোনো বাড়িতে বসবাস করেন না। এটি পরিত্যক্ত এবং সেখানে তার ভাগিনা পারভেজ বসবাস করেন।



এ বিষয়ে জান চাইলে ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার মোঃ সেলিম বলেন, পারিবারিক কারনে আমি দীর্ঘ ১১ বছর ধরে ভাড়া বাসায় থাকি। পুরান বাড়িতে আমার যাওয়া আসা তেমন হয় না,আমার বাগিনা পারভেজ ঐ বাড়িতে থাকে, সে বিভিন্ন চুরি চামারির সাথে জড়িত, সে এর আগেও চুরির মামলায় ৩ মাস জেল খেটেছে। তার এসব কর্মকাণ্ডের কারনে আমি ঐ বাড়ি ছেড়ে চলে আসি এবং তাকে বাগিনা পরিচয় দিতেও লজ্জাবোধ করি, আমি দুই দুইবার বিপুল ভোটের ব্যবধানে মেম্বার নির্বাচিত হয়েছি, সততার সহিত ইউপি সদস্যের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। একটি কুচক্রী মহল আমার জনপ্রিয়তায় ইর্ষানিত হয়ে আমাকে হেয় প্রতিপুর্ণ করার জন্য অযথা আমার নামে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে, প্রকৃত চোরকে ধরে শাস্তি দিলেই মূল ঘটনা বের হবে। আমিও চাই সঠিক তদন্তপূর্বক দোষীর শাস্তি হোক।


চরজব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেব প্রিয় দাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় তদন্ত করে প্রকৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Don`t copy text!