জুয়েল আহমেদ :
প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিভাগীয় কমিশনার জিএসএম জাফরউল্লাহ্ এনডিসি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান খাদ্য নিরাপত্তা ও নিরাপদ খাদ্যের প্রতি প্রথম জোর দিয়েছিলেন।

এরপর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আসার পার দেশ আবার খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। বর্তমানে দেশে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বিশ্ব ক্ষুধা সূচকে প্রশংসনীয় অবস্থায় আছে। নিরাপদ খাদ্যের সঙ্গে এসডিজির সম্পর্ক রয়েছে। তাই সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ খাদ্যের কোন বিকল্প নেই। নিরাপদ খাদ্যের নিশ্চয়তা বৃদ্ধি করতে খাদ্য উৎপাদনের গুণগত মান বাড়াতে হবে। কেননা দেশের মানুষ এখন খাদ্য গ্রহণে অনেক সচেতন।



মঙ্গলবার (৭ জুন) সকালে নগরীর মাস্টার শেফ চাইনিজ রেস্টুরেন্টে বিশ্ব নিরাপদ খাদ্য দিবসের আলোচনা সভা প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

এবছরে দিবসটি প্রতিপাদ্য ছিল, “নিরাপদ খাদ্য, উন্নত স্বাস্থ্য”।

রাজশাহী বিভাগীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ জেলা কার্যালয়ের আয়োজনে সভায় বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের রাজশাহী জেলা কার্যালয়ের নিরাপদ খাদ্য অফিসার মোঃ লোকমান হোসেন এঁর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রস্ট্রির সভাপতি মাসুদুর রহমান রিংকু, রাজশাহী বিভাগের প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের পরিচালক ড. মোঃ নজরুল ইসলাম, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ড. জুলফিকার মোঃ আখতার হোসেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের প্রফেসর ড. সাঈদ আঞ্জু, আঞ্চলিক কৃষি অফিসার মোঃ আব্দুল-হিল-কাফি, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মোঃ খায়ের উদ্দীন মোল্লা, রাজশাহী হোটেলে রেস্তোরাঁ মালিক সমতিরি সভাপতি রিয়াজ আহমেদ খান, রাজশাহী ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক মোঃ হাসান-আল-মারুফ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.